Wednesday , February 17 2021
করোনাকালেও থেমে নেই জীবনতরী পাঠশালা"র সামাজিক কার্যক্রম

করোনাকালেও থেমে নেই জীবনতরী পাঠশালা”র সামাজিক কার্যক্রম

করোনাকালেও থেমে নেই নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন “জীবনতরী পাঠশালা”র সামাজিক কার্যক্রমসমুহ-

করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রকোপের কারনে সারাদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমুহ বন্ধ দেওয়া হলে “জীবনতরী পাঠশালা”র ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রের শিক্ষার্থীদের পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হলেও ওরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে খোাজ খবর নেয় ও প্রতি মাসে শিক্ষা উপকরণ বাড়িতে পৌঁছে দেয়।

করোনাকালেও থেমে নেই জীবনতরী পাঠশালা"র সামাজিক কার্যক্রম

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের শুরু থেকে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য জলঢাকা উপজেলায় মাইকিং করানো, লিফলেট, মাস্ক,সাবান বিতরণ করে। করোনা ভাইরাস প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বাড়িতে পৌঁছে দেয়। রমজান মাসে ইফতার ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ , বৃক্ষ রোপন ও চারা বিতরণ এবং পবিত্র ঈদ উল আযহা তে একটি গরু ও দুইটি ছাগল কুরবানি করে দরিদ্র পরিবার গুলোর মুখে হাসি ফোঁটানোর জন্য বাড়ি বাড়ি মাংস পৌঁছে দিয়ে আসে।

সবগুলো কার্যক্রম সম্পুর্ণ করতে সক্ষম হয়েছে আপনাদেরই আর্থিক সহযোগিতায়। এছাড়াও সংগঠনের অন্যান্য কার্যক্রম চলমান রযেছে। চললাম পরিস্থিতিতে সবকিছু স্থবির হয়ে পড়লেও অবসর সময়টুকুতে জীবনতরী পাঠাগারে বই পড়ে অনেকেই সময় পার করাচ্ছেন। জীবনতরী পাঠশালার পাঠাগারে পাঠকদের বই পড়ার চাহিদা যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে টিক তেমনি বইয়ের জোগান দিতে পারছে না।

সামাজিক কার্যক্রম

আবার অন্যদিকে পাঠাগারে ফ্যান না থাকায় প্রচন্ড গরমের মধ্যে বই পড়তে পাঠকদের সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। জীবনতরী পাঠশালার ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রের ১ম থেকে ৪র্থ শ্রেণির মোট ১০৩ জন্য শিক্ষার্থী রয়েছে। সেখানে কলেজ পড়ুয়া ৭জন শিক্ষার্থী পাঠদান দিয়ে আসতেছেন। শিক্ষার্থীদের বসার সমস্যা ও গরমের তাপদহ থেকে উত্তরণের জন্য জীবনতরী ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রর নতুন ঘরে আরো ১০ সেট ব্রেঞ্চ এবং ২টি সিলিং ফ্যান, পাঠাগারে জন্য বই ও রেক এবং শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা উপকরণ প্রয়োজন।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে বাংলাদেেশ এগিয়ে গেলেও গ্রাম অঞ্চলে তারা পিছিয়ে আছে। শিক্ষার্থীদের বাড়িতে কম্পিউটার না থাকায় অনলাইন ক্লাস গুলো মিস করতেছে, লেখাপড়া থেকে আরো পিছিয়ে পড়ছে। তাদেরকে অনলাইন ক্লাস গুলো দেখানো বা কম্পিউটার শেখানোর জন্য কম্পিউটারের প্রয়োজন। আপনাদের বাড়ির বইগুলো এই পাঠশালায় উপহার হিসাবে দিতে পারেন।

অন্য যেকোন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি। সাহায্য করার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন – [email protected].

Check Also

ফেব্রুয়ারিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আভাস

ফেব্রুয়ারিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আভাস

মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে বন্ধ রয়েছে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে বন্ধ থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *